প্রোডাক্ট রিভিউঃ জিলেট ভেনাস রেজর ফর ওমেন

বেশ কিছুদিন আগে অনাকাঙ্ক্ষিত হেয়ার প্রবলেমের সলিউশনে বডি শেভিং, এ সম্পর্কে প্রচলিত কিছু মিথ আর সঠিক সেভিং মেথড নিয়ে লিখেছিলাম… সেদিন ইনবক্সে বেশিরভাগ প্রশ্নই ছিল , শেভ করার জন্য কি ইউজ করব? কোন রেজর ভালো হবে? কোথায় পাবো? দোকানে গিয়ে ছেলেদের রেজর চাইব? প্রতি মাসে নতুন রেজর লাগবে? … এই ধরনের।  ভাবলাম নিজে যেটা ইউজ করছি এতদিন ধরে সেটারই কেন একটা রিভিউ লিখে ফেলি না? সংকোচের কারণে যারা পাব্লিকলি প্রশ্ন করতেই ভয় পাচ্ছেন, তাদের হয়তো একটু হেল্প হবে!

আজকের রিভিউ-এর টপিক একটা রেজর। তো চলুন, জিলেট ভেনাস রেজরের ভালো খারাপ দিকগুলো নিয়ে কয়েক বছরের অভিজ্ঞতায় যা জেনেছি তা আপনাদের সাথে শেয়ার করি।

জিলেট ভেনাস রেজর কেন মেয়েদের জন্যই, স্পেসিফিকালি সেটাই প্রথমে খটকা লাগে, তাই না? ছেলেদের ইনস্ট্যান্ট রেজর কিনে ফেললে কি হবে? পুরনো মদ নতুন বোতলে ভরে টাকা খসাতে চাইছে না তো?

জিলেট ভেনাস রেজরের ক্লেইম

জিলেট ভেনাস নারীদের জন্য ডিজাইন করা প্রথম রেজর, এটা সত্যি। জিলেট আরও ক্লেইম করে, এর তিনটি ব্লেড সাজানো হেড আপনাকে দেবে মসৃণ ত্বক, এক নিমেষে। আমার এক্সপেরিয়েন্সে এটাও ঠিক, নিচের জিলেট ভেনাস রেজর হেডটা দেখুন-

তিনটা ব্লেড একই হেয়ারের উপর দিয়ে তিনবার পাস হয়। এজন্য হেয়ার মিস হয়ে যাবার চান্স কমে। আবার আমি আগে যখন ওয়ান টাইম রেজর ইউজ করার ট্রাই করতাম, তখন একই স্কিনের উপরে ৩-৪ বার রেজর চালাতে হত মিস হয়ে যাওয়া হেয়ার শেভ করার জন্য, ফলাফল লাল হয়ে যাওয়া স্কিন, কাঁটা দাগ আর প্রচণ্ড রেজর বার্ন! এজন্য বিরক্ত হয়ে মাঝখানে অনেক টাকা খরচ করে ওয়াক্স করাতাম।আর যাই হোক রেজর বার্ন তো আর সইতে হবে না!  (যারা রেজর ইউজ করতে গিয়ে কাঁটাছেড়ার ভিকটিম হয়েছেন, নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন আমি কি মিন করছি)  । জিলেটের তিন ব্লেডে এক পাসেই স্মুথ স্কিন পাবার ক্লেইম আমার ক্ষেত্রে অনেকটাই খাটে। জাস্ট হাঁটু বা কনুইয়ের কার্ভের উপর হয়তো দুবার পাস করতে হয়!

সেকেন্ডলি, সেনসিটিভ স্কিনে বা একটু অমনোযোগী হয়েই ব্লেডের মাঝে স্কিন পড়ে গিয়ে কেটে যায়। এটা বেশি হয় চোখের আড়ালের বডি পার্টে (পায়ের পেছনে) বা কার্ভের উপরে (কনুই) , আবার রেজর হেডের ছবিটা দেখুন, উপরে নিচে মোটা নীল ব্যান্ড দেখছেন? ওই ব্যান্ড দুটো স্কিনের সাথে ব্লেডের মিনিমাম কনট্যাক্ট নিশ্চিত করে। যাতে ব্লেডের মুখ স্কিনে বসে যেতে না পারে। আর উপরের ব্যান্ডের নিচে ডার্ক ব্লু একটা লাইন দেখছেন? ওটা একটা ময়েশ্চারাইজিং বাম। স্কিনে রেজর গ্লাইড করতে ওটার হেল্প করার কথা। বাম-টা আমার কতটুকু কাজে লাগে জানি না, কারণ আমি শেভিং ক্রিম/ কন্ডিশনার ইউজ করি। বাট ব্লু ব্যান্ড আর রেজর হেডের ফ্লেক্সিবল পিভটের কারণে চোখ বুজে শেভ করাটাও যে সম্ভব সেটা বলতে পারি। এই দুই ফিচারের কারণে এই রেজর ইউজ করে এক্সিডেন্ট করার হার আমার তো কমেছেই, আমার পরিচিত যে কজন ফ্রেন্ড জিলেট ভেনাস ইউজ করে তাদেরও মতামত একই।

কিভাবে ইউজ করব?

সঠিক নিয়মে শেভ করার উপায় ‘বডি শেভিং’ নিয়ে আগের লেখাটায় দিয়ে দিয়েছি। আমি ওই মেথডই ফলো করি। কষ্ট করে পড়ে নেবেন প্লিজ। আর জিলেট রেজার যেকোনো শেভিং ক্রিম থেকে শুরু করে সানসিল্ক বা ট্রেসিমি হেয়ার কন্ডিশনারের সাথে ইউজ করা যায়। আজ পর্যন্ত আমার কোন সমস্যা হয় নি।

দাম

শুধু রেজরের বডির দাম ৪৬০-৫০০/- টাকা। লাস্ট আমি আলমাস সুপার শপ থেকে কিনেছিলাম ৪৬০ পড়েছে। অনলাইনে প্রি-অর্ডার করলেও এমনটাই পড়বে।

রিফিলের দাম- ৪ টা ব্লেড কার্টিজের রিফিলের দাম পড়বে ৮৫০ টাকা।

প্রাপ্তিস্থল

আমি ঢাকার প্রায় সব সুপারশপেই জিলেট ভেনাস দেখেছি। রিফিল কার্টিজও তারা স্টকেই রাখেন। ঢাকার বাইরে কেনাটা একটু কঠিন হবে। বাট অনলাইন শপ থেকে প্রি-অর্ডার করে একটা রেজর আর বেশ কয়েকটা রিফিল কিনে রাখলে এক থেকে দেড় বছর নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন।

রিফিল চেঞ্জ করব কিভাবে?

রেজর হেডের পেছনের ডার্ক ব্লু বাটন প্রেস করলেই হেড বডি থেকে বেড়িয়ে আসবে, জাস্ট রিফিল টাব থেকে রিফিল রেজর হেড তুলে বডিতে লাগিয়ে প্রেস করলেই হেড ফিট হয়ে যাবে। খুবি ইজি। আর আমি আজ পর্যন্ত একই রেজর বডি ইউজ করে ১০-১২ টা রিফিল চেঞ্জ করেছি, বডির কোন ক্ষতি না হওয়ায় নতুন রেজর কেনার দরকার পড়েনি।  রিফিল হেডের একটা ছবি দিয়ে দিলাম।

একটা হেড কদিন পরপর চেঞ্জ করতে হবে?

ভোঁতা রেজর কোন ভাবেই ইউজ করা যাবে না। বাট নির্দিষ্ট ভাবে বলা সম্ভব নয় ঠিক কদিন লাগবে রেজর হেড ভোঁতা হতে, রাইট? সো আমি ময়েশ্চার বামের ডার্ক ব্লু লাইনটা খেয়াল করি। বাম শেষ হয়ে এলে লাইনটা হালকা হয়ে আসে আর এবড়ো থেবড়ো হয়ে যায়। তখনি আমি হেড চেঞ্জ করে ফেলি। লাস্ট বার প্রায় ৩ মাস পড় চেঞ্জ করেছিলাম। বেশ লম্বা সময় রাইট? কন্সিডারিং আমি হাত পা ফুল শেভ করি সপ্তাহে এক থেকে দুইবার।

তাই, এক নজরে জিলেট ভেনাস রেজরের ভালো দিকগুলো-

  • স্কিনে কাঁটা ছেড়া হবার ভয় কম
  • রেজর হেডের পিভট , যেকোনো বডি পার্টে সেফলি রিচ করা যায়
  • লম্বা সময় ধরে ইউজ করা যায়, জং ধরে না বা ওয়ান টাইম রেজরের মতো ২-৩ শেভের পরেই ভোঁতা হয়ে যায় না।
  • ব্লেডের কোয়ালিটি ভালো, বার বার একই জায়গায় শেভ করে রেজর বার্ন তৈরি করার চান্স থাকে না।
  • ইজিলি রিফিল চেঞ্জ করা যায়, বডির কোন ক্ষতি হয় না।
  • ঢাকায় যেকোনো সুপার শপে রিফিল ব্লেড কার্টিজ পাওয়া যায়। এই কারণেই বলতে গেলে আমি ওয়াক্স ছেড়ে শেভিং-এ আসার সাহস করেছি।

এবার আসি জিলেট ভেনাসের কিছু প্রবলেমের ব্যাপারে-

(১) প্রথমত, দাম, ৪৬০ টাকার বডি বেশ রিজনেবল বাট খুব বাজেটে যারা চলেন তাদের জন্য ৮৫০ টাকার রিফিল একটু কস্টলি হবার কথা।

(২) ঢাকার বাইরে প্রোডাক্টের অ্যাভেইলেবিলিটি কম। রিফিল পাওয়ার তো প্রশ্নই ওঠে না। অনেকেই সংকোচে পড়ে ঢাকা থেকে অর্ডারও করতে পাড়েন না (যদিও এর কোন কারণই নেই) তাই না চাইলেও ইকুইপমেন্ট কালেক্ট করার অসুবিধা বা এফরডেবিলিটির শেভ বা ওয়াক্স কিছুই করতে না পেড়ে এক হেয়ার রিমুভাল ক্রিমেই সারাজীবন আঁটকে থাকতে হয়। ফলাফল, ডার্ক স্পট, ডার্ক প্যাচ ইত্যাদি।

তাই আমার পার্সোনাল মতামত, জিলেট ভেনাস বাংলাদেশের সব প্রান্তেই মোটামুটি অ্যাভেইলেবল হলে ওয়াক্সের সবচেয়ে বড় কম্পেটিটর সেই হত। কারন আজ পর্যন্ত এই রেজর ইউজ করে কোন ধরনের স্কিন প্রবলেমের সম্মুখিন হই নি।

আমার রেটিং- ৮ /১০   

জিলেটের মতই আরেকটি পপুলার ব্র্যান্ড শিক (schick) আপনারা চাইলে জিলেট ভেনাসের সাথে এর কম্পেয়ার করে ফিউচারে লিখব। আজ এটুকুই। এই প্রোডাক্ট সম্পর্কে আরও কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে জানাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *